ভালোবাসার কবিতা Bangla | valobaser Kobita Bangla.

Click View More

ভালোবাসার কবিতা Bangla | valobaser Kobita Bangla, মায়ের ভালোবাসার কবিতা, চাঁদ নিয়ে ভালোবাসার কবিতা, না পাওয়া ভালোবাসার কবিতা, বউকে ভালোবাসার কবিতা, ভালোবাসার কবিতা ছবি.

https://bloggpower.com/

ভালোবাসার কবিতা.

তুমি কি শুনবে …আমার ভাল-মন্দ লাগা কিংবা দুঃখ ব্যথা?

তোমরা কি শুনবে কেউ
আমার কিছু কথা?
আমার ভাল-মন্দ লাগা
কিংবা দুঃখ ব্যথা?
মাঝে মাঝে নিজেকে
লাগে বড় একা,
মনের মত বন্ধুর দেখা
পাবো আমি কোথা?
চুপচাপ বসে থাকি
কিছুই লাগে না ভাল,

অবচেতন মন বলে ওঠে,
কিছু একটা কর।

কিন্তু কি করবো আমি
পাই না কোন কাজ,
কখন যে পার‌ হয়
সকাল-দুপুর-সাঁঝ!
একা একা কোন কিছুতেই
সময় আর না কাটে,
ইশ একটা কাজ এখন যদি
থাকতো আমার হাতে!
ভাল কিছু যখন আর
করার না থাকে,
উদ্ভট কিছু চিন্তা ভাবনা
মাথায় চলে আসে।
সেইসব চিন্তা ভাবনার
আগা মাথা নাই,
চিন্তার সাগরে কখনো ডুবে
হাবুডুবু খাই!

মাঝে মাঝে বিরক্ত হয়ে
বই নিয়ে বসি,

কি আর পড়বো? এখন তো
লাগছে সবই বাসি।
কখনো কখনো মনে হয়
কিছু একটা লেখি,
কখনো বা জানালা দিয়ে
দূরে তাকায়ে দেখি।
চোখের দৃষ্টি মাঝে মাঝে
সুদূরে হারিয়ে যায়,
মনের গভীর কল্পনা ছেড়ে
অনন্ত নীলিমায়।
কখনো আমি বন্ধুর কাছে
লিখতে বসি চিঠি,
উত্তরের প্রতিক্ষায় থাকে
আমার নয়ন দিঠি।
চোখের সামনে ভাসে যে
কত রঙ্গীন স্বপ্ন,
মনের মাঝে জাগে কত
হাজারো জটিল প্রশ্ন।
মাঝে মধ্যে লিখে ফেলি
ছড়া কিংবা কবিতা,
কখনো পড়তে ভাল লাগে
রূপকথার গল্প কথিকা।


জ্যোৎস্না রাতে চাঁদ দেখতে ভীষণ লাগে ভাল….এই কি আমার দোষ https://bdjobslinks.com/

ছড়া কিংবা কবিতা,
কখনো পড়তে ভাল লাগে
রূপকথার গল্প কথিকা।
উদাস দুপুরে শুনি কভু
প্রিয় শিল্পীর গান,
মনের অজানে দিয়ে উঠি
দুই একটি টান।
ছাদে উঠে মাঝে মাঝে
রাতের বেলায় হাঁটি,
চুপিসারে নিজের সাথে
নিজেই কথা বলি!
একাকী কথা বলি দেখে
লোকে পাগল ভাবে,
যার জা ইচ্ছা ভাবুক,
আমার কি যায় আসে!
মাঝে মাঝে ঘোর বৃষ্টিতে
ভিজতে ভাল লাগে,

জ্যোৎস্না রাতে চাঁদ দেখতে
ভীষণ লাগে ভাল।

ছুটির দিনে সকাল বেলা
দেরী করেই উঠি,
সবার সুখে সুখী হই,
সবার দুখে দুখী।
বিপদে আপদে আমি কভু
হারাইনা মনোবল,
কষ্ট ব্যথা হোক না কেন
যতই কঠিন প্রবল।
একে একে অনেকেই তো
ছেড়ে গিয়েছে দূরে,
ওদের কথা সর্বদাই যে
খুব মনে পড়ে।


বিনা দোষে পেলাম এত্ত সাজা..

বিনা দোষে কেউবা আমার
করেছে আমায় পর,
হায়রে তোমারা বুঝলে না
কে বা আপন পর!
নির্দোষ আমি, কেন আমায়
দূরে ঠেলে দিলে?
কি অপরাধে তোমারা আমায়
ছেড়ে চলে গেলে?
কার ভুল ছিল বেশী
বুঝবে একদিন বুঝবে!
সময় নিশ্চই আসবে একদিন
খুঁজবে আমায় খুঁজবে!

একদিন সব ছেড়ে আমি
চলে যাব দূরে,

তখন খুঁজে পাবে না আমায়
সারা জগৎ ঘুরে।
যখন আমি থাকবো না
কার চোখের সামনে,
তখন কি পড়বে কারো
আমার কথা মনে?
জানি তখন সবাই তোমরা
ভুলেই আমায় যাবে,
একবার ডেকে দেখো আমায়
নিশ্চই সাড়া পাবে!
বেঁচে থাকতে কেউ আমায়
দিল না একটু স্নেহ,
একটু ভালবাসলো না কেউ
আদর করলো না কেহ।
যখন এই দুনিয়া ছেড়ে
মরণ আমার হবে,
তখন কারো মনে কি
আমার জায়গা হবে?

সত্যি বলছি কারো কথা
ভুলতে পারিনি আমি,

বিশ্বাস কর আমার কথা
সাক্ষী অন্তর্যামী!
যদিও তোমরা খুব সহজে
গিয়েছো আমায় ভুলে,
তবুও আমি ক্ষণিকের তরেও
যাইনা তোমাদের ভুলে।
কখনো আমায় সইতে হয়েছে
অনেক কথা তিরস্কার,
মনে করেছি এটাই ছিল
মোর পাওনা পুরস্কার।
যদিও কভু মোর অন্তরে
লেগেছে কিছুটা ব্যথা,
কই কেই তো শুনতে চাইলো না
আমার দুঃখের অব্যক্ত কথা।
কি লাভ হবে আর
শুনে এইসব কথা?
সব কিছুই আমার মনে
একই সূত্রে গাঁথা।


‘মেঘ’ তোমাকে নিয়ে লিখে চাই ..কিন্তু পারলাম না..

‘মেঘ’ নামে কবিতা লিখেছি
এইত কিছুদিন আগে,
মাঝে মাঝে কবিতা লিখতে
বেশ ভালই তো লাগে।
ক্লাসের মাঝে কবিতাটা আমি
দিলাম বন্ধুর হাতে,
কেউ আবার জানতে চাইল,
‘কি লিখেছিস ওতে?’
লেখাটুকু পড়া হলে পরে
বন্ধু আমাকে শুধায়,

‘লেখার মধ্যে কেমন যেন
দুখী লাগলো তোমায়?’

আমি বলি, ‘হঠাৎ কেন
এরূপ মনে হল তোমার?
সত্যি বলছি এখন আর
কোন দুঃখ নেই আমার’।
অতীতে আমি করেছিলাম
ভীষণ একটা ভুল,
চড়া মুল্যে আজো দিচ্ছি
সেই ভুলের মাশুল।
কি হয়েছিল যদিও তোমারা
সকলেই তা জানো,
এরপরও দু’একটা কথা
বলছি তবে শোনো।
বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিয়ে
করে ফেলেছিলাম পাপ,
বিবেককে আজ দংশন করে
সেই মহা অভিশাপ।
শুধুই বন্ধু হতে চেয়েছিলাম
স্বার্থ ছিলনা কোন,
সে তো ভেবেছিল, আমি এক
প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলাম যেন!

মিথ্যার আড়ালে বাস করে সে
নিদারুণ স্বার্থপর,

স্বার্থের মোহে আজ সে
আপনকেই করেছে পর।
একদিন যাকে না দেখলে
কিছুই লাগতোনা ভাল,
আজ আমার তাকে দেখলেই
মুখ হয়ে যায় কালো।
বন্ধুত্বের মধুর সম্পর্ক সে
করেছে কলঙ্কিত,
বিষাক্ত ছোবলে সে করেছে
বন্ধুত্ব প্রশমিত।
ছদ্মবেশের আড়ালে সে
খুঁজে নিয়েছে স্বজন,
আমাদের মাঝে তৈরি করেছে
দূরত্ব হাজার যোজন।
কত দক্ষতায় করেছে সে
হিসাব লাভ আর ক্ষতি,
সে কি ভেবেছে তাকে ছাড়া
নাই আমাদের গতি?
সে ভেবেছে করে ফেলেছে
দারুণ বাজিমাত,
নিজের কাজে একদিন সে
হবেই কুপোকাত।

বহুদিন থেকে সে আমাকে
দিয়ে এসেছে ধোঁকা,

তখন বুঝিনি, আজ বুঝেছি
আমিএ ছিলাম বোকা।
তোরা ভেবেছিস হয়ত আমি
কিছুটা বদলে গিয়েছি,
আগেও যেমন ছিলাম আমি
এখনও তেমনি আছি!
জীবনে যখন ঘনিয়ে এল
দুঃখের কালো রাত,
তোরাই তখন বাড়িয়ে দিলি
বন্ধুত্বের সেই হাত।
বর্তমানকে সাথে করে
অতীত গিয়েছি ভুলে,

মনে করতে চাই না কিছু,
এত ভাবলে কি আর চলে?

উলটা-পালটা প্যাঁচাল পেড়ে
নষ্ট করলাম সময়,
লেখাটা পড়া হলে পরে
মারবি না তো আমায়?
আমাকে তোরা বন্ধু করে
তোদের কাছেই রাখিস,
তোরাই আমার বন্ধু ছিলি
তোরাই বন্ধু থাকিস।


মেঘ তাকেই এখন ভালবাসি তোমায় না পেয়ে…যেই মেঘ আমাকে বৃষ্টিটা ভিজাই,আমাকে কাদায়,আবার আমাকে হাসায়,কেন এত্ত ভালবাসি এই মেঘ বুজতে পর তুমি…তোমার স্পর্স যে খুজাপাই এই বৃষ্টির ফোটায় ফোটায়……

কালো মেঘ ছেয়ে গেছে
নীল আকাশটা জুড়ে,
আঁধার যেন গ্রাস করেছে
শূন্যের বুকটা ছিঁড়ে।
নিস্তব্ধ হয়েছে কেন
বিষন্ন এই পৃথিবী?
কেন আজ হারিয়েছে
তার মাধুর্য সবই?
বাতাস যেন ভুলেছে তার
অবিরাম পথ চলা,
কঠোর হাতে কে করছে
এই নিষ্ঠুর লীলাখেলা?
ক্লান্ত পথিক হেঁটে যেতে
বিমর্ষ চোখে চায়-
একটু আশার আলো
যদি
কোথাও খুঁজে পায়!
থেমে গেছে কেন আজ
পাখিদের কলরব?
আকাশ কেন হয়েছে আজ
কেবলি নিশ্চুপ নীরব?
পথিক ভাবে হঠাৎ আজ
কে করলো দ্রোহ?
উত্তর না পেয়ে তার
ভেঙ্গে গিয়েছে মোহ।
নিরব রাস্তা একাকী রয়
এতটুকু নাই প্রাণ-
দেখে তাই পথিকের মন
করে ওঠে আনচান।
সূর্য্য অভিমান করে কেন
লুকিয়ে ফেলেছে মুখ?
কিসের এত ব্যথা বেদনা,
কিসের এত দুখ?
চলতে চায় না যে আর
থমকে গিয়েছে সময়,
বারবার কেন যেন
মনে পড়ছে সময়!
মনের আকাশেও আজ তাই
কালো মেঘ গেছে ছেয়ে,
শূন্য হৃদয় হাহাকার করে
শুধু তোমায় না পেয়ে…

মন বলে একবার তোময় দেখতে পাই যদি,সার্থক হবে আমার প্রেম পত্র লিখা

অবাক হবার মতই ব্যাপার
ছিলাম মোরা অচেনা,
কেমন করে হল মোদের
এমন জানা শোনা?
কোন এক শুভক্ষণে
পেলাম তোমার ঠিকানা,
আমার মনের তৈরি হল
তোমার জন্য আস্তানা।
বিস্ময়ের সব ঘোর কাঁটিয়ে
লিখলাম তোমায় চিঠি,

তোমার পত্র হাতে পেলেই
আবদ্ধ হয় দিঠি।

এরপর থেকে হয়েছি যে
বন্ধুত্বের বাঁধনে বন্দী,
প্রত্যেক মাসেই পত্র লিখি
চলে আপস সন্ধি!
সত্যিই বলছি তুমি আমার
মন নিয়েছ কেড়ে।
ভীষণ কষ্ট পাবো যদি
যাও আমার ছেড়ে।
মন বলে একবার তোমায়
দেখতে পাই যদি,
তোমার সাথে মিলবে কি
আমার মনে আঁকা ছবি?
অবশেষে করতে পারলাম
তোমার সাথে দেখা,
তোমার কাছে পাঁঠানো পত্র
সার্থক হয়েছে লেখা।


নির্জনতার মাঝেই আমি নিজেকেই খুঁজে পাই..

রাত্রি যখন নিঝুম হয়
নিস্তব্ধ হয় পৃথিবী,
ঘুমিয়ে পড়েছে সকল কিছু
নিশ্চুপ রয়েছে সবই।
মাঝে মাঝে নিস্তব্ধতা ভাঙ্গে
ঝিঁ ঝিঁ পোকার ডাকে,
বাঁকা চাঁক উঁকি মারে
মেঘের ভেলার ফাঁকে।
বনের মধ্যে চলছে যখন
আলো আঁধারির খেলা,
আকাশজুড়ে বসেছে তখন
সহস্র তারার মেলা।
রূপালী জোছনা প্লাবিত করেছে
সুপ্ত এই প্রকৃতিকে,

তারার আলো সাজিয়ে দিয়েছে
রাতের নিস্তব্ধতাকে।

এরই সাথে যুক্ত হয়েছে
ক্ষুদ্র জোনাকীর আলো,
কে বলবে আঁধারের রূপ
লাগে বড় কালো?
নিশাচর পশুরা বেরিয়ে পড়েছে
খাবারের সন্ধানে,
নদীর পানি ফুলে উঠেছে
জোয়ারের প্লাবনে।
বাতাস যখন বয়ে চলে
বনের ভিতর দিয়ে,
বনের বৃক্ষ শামিল হয়
মর্মর ধ্বনি দিয়ে।
এরই মাঝে একাকী আমি
উদ্দেশ্যহীন হেঁটে যাই,
নির্জনতার মাঝেই আমি
নিজেকেই খুঁজে পাই।


তোমার কথাই যে মনে পড়ে…রাত্রি যখন আসে চুপিসারে

শ্রাবনে ঝর ঝর বর্ষা নামে,
মাঠ ঘাট ভেসে জায় জলে,
ঝিলের শাপলারা সব হেসে ওঠে,
তখন তোমার কথাই যে মনে পড়ে!গ্রীষ্মের খরাতপ্ত উদাস দুপুরে,
একাকী পান্থ হেঁটে যায় দূরে,
বিস্তীর্ন দিগন্তে পাখিরা যায় উড়ে,
তখন তোমার কথাই যে মনে পড়ে!

একদিন সন ধ্বংস হবে লয়ে,
অশান্ত বিশ্ব আসবে শান্ত হয়ে,
সমূদ্র নাচবে ঢেউ এর প্রলয়ে,
তখন তোমার কথাই যে মনে পড়ে!

ফসলের মাঠে বাতাস বয়ে চলে,
গাছগুলো সব একাধারে হেলে পড়ে,
অবসন্ন কৃষক মাঠে থাকে বসে,
তখন তোমার কথাই যে মনে পড়ে!শীতের ঢেকে যাওয়া কুয়াশার চাদরে,
ঠান্ডা হিমেল বাতাসের পরশে,
প্রকৃতি মেতে ওঠে উৎসব পার্বণে,
তখন তোমার কথাই যে মনে পড়ে!প্রকৃতিতে যখন মোহনীয় বসন্ত আসে,
চারিদিক শোভিত হয় ফুলের সৌরভে,
মৌমাছিরা ফুলে মধু খুঁজে ফেরে,
তখন তোমার কথাই যে মনে পড়ে!পূর্ব দিগন্তে যখন সূর্য্য ওঠে হেসে,
গাছে গাছে পাখিরা মাতে কূজনে,
প্রকৃতি সজ্জিত হয় অপূর্ব সাজে,
তখন তোমার কথাই যে মনে পড়ে!

হৃদয় যখন হয়ে ওঠে অশান্ত,
তোমার স্মৃতি মনকে করে শান্ত,
রাত্রি যখন আসে চুপিসারে,
তখন তোমার কথাই যে মনে পড়ে!

রঙের পসরা নিয়ে রংধনু ওঠে,
হৃদয় মাতে যখন আপন খেয়ালে,
ভরে যায় সব বর্ণিল ছবিতে,
তখন তোমার কথাই যে মনে পড়ে!মন উদাস হয় বাঁশির করুণ সুরে,
বারবার মনে হয় নও তুমি দূরে,
যখন এলে তুমি এই মনের গভীরে,
তখন তোমার কথাই যে মনে পড়ে!


আমায় পাবে না খুঁজে…যখন হারিয়া যাব সবার শেষে..

আমাকে দূরে চলে যেতে হবে, দূরে অনেক দূরে;
এই লোকালয় থেকে নির্জনে অজানা কোন অন্তপুরে!
যেখানে কেউ কোন ভাবেই পাবে না আমার দেখা,
যেখানের দিন ক্ষন তারিখ কিছুই রবে না লেখা!
জানি না আমি এমন জায়গার মিল্বে কি সন্ধান?
যদি পেতাম তাহলে অবিলম্বেই করতাম প্রস্থান!
এমন জায়গা যেটা কিনা হবে সমুদ্রের কাছাকাছি,
যেখানে আকাশ ছুঁয়েছে মাটিকে পানির পাশাপাশি!

বাতাসে দোলা যেথা আনে পাতায় পাতায় আলোড়ন,

আমি একা সেই সব দৃশ্য করতে চাই অবলোকন!
মর্মর ধ্বনি যেথা মনে এনে দেবে এক চাঞ্চলতা,
সমুদ্রের সাথে যেথা হবে আকাশের কথকতা!
পাখিরা উড়ে যাবে যেথা শুন্যে রঙ্গিন ডানা মেলে,
সেখানেই যেতে চাই আমি সবকিছুকে পিছনে ফেলে।
যেখানে থাকবে না কোন দুঃখ হতাশার দৈন্য দশা,
থাকবে না কোন জরা, ব্যাধি, শোক আর নিরাশা!
একা একা থাকবো, যেখানে কেউ পাবে না খুঁজে,
যেথায় থাকতে হবে না আমার দুঃখে মুখটি গুজে!
তাইত আমাকে চলে যেতে হবে দূরে, অনেক দূরে-
যেখানে তুমি পাবে না আমায় সারা পৃথিবী ঘুরে


আমি তোমার ভালবাসার স্পর্শ পেয়ে হয়েছি পরিপূর্ণ,তবুও আমি পেতে চাই তোমারই ভালবাসার একটু স্পর্শ। https://bdjobslinks.com/

আমি তোমার ভালবাসার স্পর্শ পেয়ে হয়েছি পরিপূর্ণ,
তুমি বিহনে এতদিন আমার হৃদয় ছিল শুধুই শুন্য!
এই শুন্য হৃদয়ের পুর্ণতায় আজ আমি হয়েছি ধন্য,
তাই তো আজ মাটির পৃথিবী যেন পেয়েছে তারুণ্য।
শুন্য হৃদয় তুমি রাঙ্গিয়ে দিলে তোমার মনের তুলি দিয়ে,
আমার হৃদয়ে তোমার ছবি একেছি স্বপ্নের আঁচড় দিয়ে!
তোমার স্পর্শ আমায় রাঙ্গিয়ে দেয় নতুন ভাবে নতুন করে,
কত অজানা স্বপ্নবাসনা এসে নিরালায় আমার হাতটি ধরে!
জানি না কি এমন জাদু আছে তোমার এই স্পর্শে,
আমার হৃদয় তোলপাড় হয়ে যায় শুধু যার পরশে!

যে সুধা আমি পান করেছি কেবল তোমায় ভালবেসে,
সারাটি জীবন রেখ আমায় তোমার সেই মায়াবী পরশে।
তোমার হৃদয়-মন্দিরে আমি করবো বাস সারাটি জীবন ধরে,
এমনি করেই তোমার মনে রেখ আমায় পরম যতন করে!
হয়ত নিষ্ঠুর বাস্তবতায় থাকতে হবে অনেক দূরে-
তোমার মনের মধ্য থেকে আমি যেন না যাই সরে!
আমার মন থেকে পারবনা আমি তোমায় দূরে রাখতে,
আমার জায়গায় তুমি হলেও কি পারতে তেমনটা করতে?
আমি অপেক্ষা করে যাব তোমার জন্য শত সহস্র বর্ষ,
তবুও আমি পেতে চাই তোমারই ভালবাসার একটু স্পর্শ।


আমি তোমার ভালবাসার স্পর্শ পেয়ে হয়েছি পরিপূর্ণ,তবুও আমি পেতে চাই তোমারই ভালবাসার একটু স্পর্শ।

আমি তোমার ভালবাসার স্পর্শ পেয়ে হয়েছি পরিপূর্ণ,
তুমি বিহনে এতদিন আমার হৃদয় ছিল শুধুই শুন্য!
এই শুন্য হৃদয়ের পুর্ণতায় আজ আমি হয়েছি ধন্য,
তাই তো আজ মাটির পৃথিবী যেন পেয়েছে তারুণ্য।
শুন্য হৃদয় তুমি রাঙ্গিয়ে দিলে তোমার মনের তুলি দিয়ে,
আমার হৃদয়ে তোমার ছবি একেছি স্বপ্নের আঁচড় দিয়ে!
তোমার স্পর্শ আমায় রাঙ্গিয়ে দেয় নতুন ভাবে নতুন করে,
কত অজানা স্বপ্নবাসনা এসে নিরালায় আমার হাতটি ধরে!
জানি না কি এমন জাদু আছে তোমার এই স্পর্শে,

আমার হৃদয় তোলপাড় হয়ে যায় শুধু যার পরশে!

যে সুধা আমি পান করেছি কেবল তোমায় ভালবেসে,
সারাটি জীবন রেখ আমায় তোমার সেই মায়াবী পরশে।
তোমার হৃদয়-মন্দিরে আমি করবো বাস সারাটি জীবন ধরে,
এমনি করেই তোমার মনে রেখ আমায় পরম যতন করে!
হয়ত নিষ্ঠুর বাস্তবতায় থাকতে হবে অনেক দূরে-
তোমার মনের মধ্য থেকে আমি যেন না যাই সরে!
আমার মন থেকে পারবনা আমি তোমায় দূরে রাখতে,
আমার জায়গায় তুমি হলেও কি পারতে তেমনটা করতে?
আমি অপেক্ষা করে যাব তোমার জন্য শত সহস্র বর্ষ,
তবুও আমি পেতে চাই তোমারই ভালবাসার একটু স্পর্শ।


আমি তোমার ভালবাসার স্পর্শ পেয়ে হয়েছি পরিপূর্ণ,তবুও আমি পেতে চাই তোমারই ভালবাসার একটু স্পর্শ।

আমি তোমার ভালবাসার স্পর্শ পেয়ে হয়েছি পরিপূর্ণ,
তুমি বিহনে এতদিন আমার হৃদয় ছিল শুধুই শুন্য!
এই শুন্য হৃদয়ের পুর্ণতায় আজ আমি হয়েছি ধন্য,
তাই তো আজ মাটির পৃথিবী যেন পেয়েছে তারুণ্য।
শুন্য হৃদয় তুমি রাঙ্গিয়ে দিলে তোমার মনের তুলি দিয়ে,
আমার হৃদয়ে তোমার ছবি একেছি স্বপ্নের আঁচড় দিয়ে!
তোমার স্পর্শ আমায় রাঙ্গিয়ে দেয় নতুন ভাবে নতুন করে,
কত অজানা স্বপ্নবাসনা এসে নিরালায় আমার হাতটি ধরে!
জানি না কি এমন জাদু আছে তোমার এই স্পর্শে,

আমার হৃদয় তোলপাড় হয়ে যায় শুধু যার পরশে!

যে সুধা আমি পান করেছি কেবল তোমায় ভালবেসে,
সারাটি জীবন রেখ আমায় তোমার সেই মায়াবী পরশে।
তোমার হৃদয়-মন্দিরে আমি করবো বাস সারাটি জীবন ধরে,
এমনি করেই তোমার মনে রেখ আমায় পরম যতন করে!
হয়ত নিষ্ঠুর বাস্তবতায় থাকতে হবে অনেক দূরে-
তোমার মনের মধ্য থেকে আমি যেন না যাই সরে!
আমার মন থেকে পারবনা আমি তোমায় দূরে রাখতে,
আমার জায়গায় তুমি হলেও কি পারতে তেমনটা করতে?
আমি অপেক্ষা করে যাব তোমার জন্য শত সহস্র বর্ষ,
তবুও আমি পেতে চাই তোমারই ভালবাসার একটু স্পর্শ।


তোমার সব অনুভুতিতে যা কভু হবেনা অবসন্ন | ভালোবাসার কবিতা

তোমায় যেদিন প্রথম দেখলাম,
উপলব্ধি করতে পারিনি
ভালবাসা আসলে কি!
কিন্তু এখন বুঝতে পেরেছি
আমার জীবনে তোমার
অবস্থান কতখানি!
মুখে বলেছি না জানি কতবার
তোমায় ভালবাসি-
কিন্তু যখন অতিক্রান্ত হয়ে
গিয়েছে কিছুটা সময়,
উপলব্ধি করতে পেরেছি
আসলে কতটা ভালবাসি তোমায়!
প্রতিটি হৃৎস্পন্দনে মিশে আছো তুমি
আমার প্রতিটি বিশ্বাসে মিশে আছো তুমি
সকল অনুভুতিতে মিশে আছো তুমি
তুমি তুমি তুমি কেবলই তুমি!
জানি না কি মায়ায় জড়ালে আমায়,
আমার অনুভবে আচ্ছন্ন হয়ে আছি আমি!
প্রত্যেক নিশ্বাসে শুধু তোমাকেই খুঁজছি আমি।
আমার জীবনে মিশে আছে কিছু ব্যথা
আর কিছু পাওয়া না পাওয়ার কথা!
সব কিছু ছাড়িয়ে আমি তোমাকে পেয়েছি!
তোমাকে পেয়ে যেন আমি ফিরে পেয়েছি
আমারই সকল অনুভুতি-
এতদিন শুধু তোমারই প্রতিক্ষায়

দিয়েছিলাম যার আত্মাহুতি!

তোমাকে সপে দিয়েছি আমার মন প্রাণ,
এতদিনে পেয়েছে আমার ভালবাসা পরিত্রাণ!
আজকে আমি ভুলতে পেরেছি আমার সকল দুখ,
তোমার মাঝে আমি খুঁজে নিয়েছি সর্বনাশা সুখ!
তুমি কি উপলব্ধি করে দেখেছো কখনও
তোমাকে নিয়েই আমার সকল অনুভুতি,
আর তোমাকে ঘিরে বুনি কল্পনার মায়াজাল
নাই বা পেলাম প্রান্ত আর নাইবা পেলাম স্থিতি!
তুমি কি পারনা আমাকে করে রাখতে আচ্ছন্ন?
তোমার সব অনুভুতিতে যা কভু হবেনা অবসন্ন?


তোমার কাছে এসে….. | ভালোবাসার কবিতা

যখন তুমি টেনে নিয়েছ তোমার বাহুবন্ধনে-
তুমি মিশে ছিলে আমার প্রতি হৃৎস্পন্দনে!
কিছুদিন আগেও আমি পাইনি যার সাড়া,
আজকে তাই নাড়া দিল আমার মনের কড়া!
বিধ্বস্ত মনের আস্তাকুড়ে যা ছিলো চাপা পড়ে,
তোমার ভালবাসায় আজ তা যেন পেয়েছে জীবন,
আর তাই ক্ষণে ক্ষণে অনুভুতিতে উঠছে নড়ে!
তোমার বিহনে প্রতিপলে কেন সইছি এই মরণ?
এরই নাম যদি ভালবাসা হয় তবে কেন এই দহন?
কি অদ্ভুত এই ভালবাসা আর কি অদ্ভুত এ উপলব্ধি,
যার কাছে পরাজিত হয়েছি আমি, স্তন্ধ হয়েছে সব বুদ্ধি!
সর্বনাশা এই ভালবাসায় যে ছিল এত সুখ-

আজ আমি তা জেনে গিয়েছি

আর কখনও তোমাকে করবোনা বিমুখ।
ভালবাসার কাছে পরাজিত হয়ে আমি
দিয়েছি যখন ধরা-
পরওয়া করি না দুঃখ যাতনা,
ক্ষোভ, হতাশা কিংবা জীর্ণজরা!
এতিদিন শুধু উপলব্ধিতেই ছিল যে ভালবাসা,
বাস্তবে তার দেখা পেয়ে মিটেছে মনের আশা।
এটা কি ভালবাসার উপলব্ধি নাকি উপলব্ধির ভালবাসা?
কেন দূরে চলে গেলে, বাড়িয়ে দিলে মনের হতাশা?
শত বাঁধা পেরিয়ে তুমি-
আমার হৃদয় যখন করেছ দখল,
তোমাকে জড়িয়ে রাখবো আমি,
দিয়ে আমার ভালবাসা সকল।
আমাদের জীবনে এটাই বয়ে আনুক সুখ সমৃদ্ধি-
এইত আমাদের ভালবাসা আর এইত তার উপলব্ধি


কেমন করা দেকবো তোমায়..তুমি কোথায় \ ভালোবাসার কবিতা

প্রতিনিয়ত আমি তোমাকেই শুধু খুঁজে বেড়াই,
মাঠে, ঘাটে, ঘরে, বাইরে, আকাশে, বাতাসে-
কিন্তু কোথায় তুমি? আমি যে দেখি না তোমায়,
ক্লান্ত হয়ে ঘরে ফিরে আসি আমি একা হতাসে!
তবুও আমার বিরাম নেই! নেই একটুও স্বস্তি-
নির্জনে কিংবা লোকালয়ে আমি তোমাকে খুঁজি।
অপেক্ষায় থাকি আমি এই বুঝি তোমায় দেখি,

তথাপিও শেষ হয় না আমার আশার পুঁজি!

বাতাসে যেন মিশে আছে তোমার কোমল স্পর্শ
প্রতিমুহুর্তে আমি যেন পাচ্ছি তারই ছোঁওয়া।
পিছন ফিরে যখন দেখতে চাইলাম তোমাকে-
দেখলাম তুমি নেই! সব হয়ে গেল ধোঁয়া!
ক্ষণিকের তরে এসে তুমি কেন দিলে ধরা?
কেন তুমি থাকলে না আর অল্প কিছু সময়?
তুমি আমাকে একা ফেলে ফিরে চলে গেলে,
একাকী জীবনে নেমে এল ফের আঁধার প্রলয়!
তোমাকে বিদায় দেবার কালে আমি একটি বার
পিছন ফিরে দেখব তোমায়, মনে ছিল ভয়!
এর পরেও মনে মনে জাগিয়ে রেখেছি আশা,
হয়ত আবার দেখতে পাব আমি তোমায়।


কেমন করা দেকবো তোমায়..তুমি কোথায় | ভালোবাসার কবিতা

প্রতিনিয়ত আমি তোমাকেই শুধু খুঁজে বেড়াই,
মাঠে, ঘাটে, ঘরে, বাইরে, আকাশে, বাতাসে-
কিন্তু কোথায় তুমি? আমি যে দেখি না তোমায়,
ক্লান্ত হয়ে ঘরে ফিরে আসি আমি একা হতাসে!
তবুও আমার বিরাম নেই! নেই একটুও স্বস্তি-
নির্জনে কিংবা লোকালয়ে আমি তোমাকে খুঁজি।
অপেক্ষায় থাকি আমি এই বুঝি তোমায় দেখি,
তথাপিও শেষ হয় না আমার আশার পুঁজি!
বাতাসে যেন মিশে আছে তোমার কোমল স্পর্শ

প্রতিমুহুর্তে আমি যেন পাচ্ছি তারই ছোঁওয়া।

পিছন ফিরে যখন দেখতে চাইলাম তোমাকে-
দেখলাম তুমি নেই! সব হয়ে গেল ধোঁয়া!
ক্ষণিকের তরে এসে তুমি কেন দিলে ধরা?
কেন তুমি থাকলে না আর অল্প কিছু সময়?
তুমি আমাকে একা ফেলে ফিরে চলে গেলে,
একাকী জীবনে নেমে এল ফের আঁধার প্রলয়!
তোমাকে বিদায় দেবার কালে আমি একটি বার
পিছন ফিরে দেখব তোমায়, মনে ছিল ভয়!
এর পরেও মনে মনে জাগিয়ে রেখেছি আশা,
হয়ত আবার দেখতে পাব আমি তোমায়।


প্রিয় সেই সময়গুলি.. | ভালোবাসার কবিতা

অনেকগুলো দিন গিয়েছে চলে
অনেকটা সময় হয়েছে অতিক্রান্ত,
লাভ-লোকসানের হিসাব করে
আজ আমি বড়ই পরিশ্রান্ত!
কি হবে এই হিসেব মিলিয়ে?
কি হবে আর অঙ্ক কষে?
গুন, ভাগ আর যোগ করে
মিললো না কিছুই অবশেষে!
অতীতের পানে চেয়ে দেখি

সবকিছুই আজ স্মৃতি।

ভবিষ্যতের পানে চেয়েও তো
পেলাম না আশার জ্যোতি!
শৈশবের সেই বন্ধুদের আআর
পাই না তো খুঁজে আমি,
এখন বুঝি বাল্যবন্ধুরা ছিল
আমার কাছে কত দামী।
স্কুল প্রাঙ্গনে ছোটবেলা সবে
খেলাধূলা করেছি কত
তাই দেখে বলতো সবাই
‘এরা চঞ্চল কেন এত?’
মনে পড়ে যায় শৈশবের কথা
হাসি আনন্দের দিনগুলি-
চোখের নিমিষে হারিয়ে গেল
প্রিয় সেই সময়গুলি!


তার কথা আজ পরছে খুব মনা…সে যে আমার প্রিয় প্রিয়তমা… | ভালোবাসার কবিতা

তার কথা আজ
পড়ছে খুবই মনে,
যতন করে যাকে রেখেছি
এই হৃদয়ের কোনে।
শৈশবের সেই বন্ধুকে
কখনও ভুলিনি আমি,
কত ভালবাসি তাকে
যানে অন্তর্যামি!
আমরা একসাথে তখন
খেলা করেছি শত,
খেলাচ্ছলে একটু-আধটু
ঝগড়াও হত কত!
কালচক্রে সেইসব দিন
কবেই হারিয়ে গেছে-
স্মৃতির পাতায় আজও তা
সযতনে লেখা আছে।
মনের ভিতর তোমাকে আমি
একাকী খুঁজে বেড়াই,
ভয় হয় আবার যদি
বেঘোরে তমায় হারাই।

তোমার কি মনে পড়ে
স্বপ্নময় সেইসব দিন?

তুমি আমার মনের মাঝে
আজও আছ অমলিন।
চলে যাবার সময় যখন
দেখা করতে এলে-
তুমি আমার বলেছিলে
যেওনা আমায় ভুলে।
হাজার বছর পার হলেও
কিভাবে তোমাকে ভুলি?
তোমার কত ছবি এঁকেছে
আমার স্বপ্নের রংতুলি!
বহুদুরে চলে গেলেও
যেখানেই থাকি আমি,
ছায়া হয়ে আমার সাথে
সেখানেই আছ তুমি।
হয়ত একদিন আবার
আমাদের দেখা হবে,
আমি জানি তুমি আসবে
অপেক্ষার প্রহর শেষ হবে


বন্ধু তোমায় | ভালোবাসার কবিতা

বন্ধু তোমার কি মনে আছে পুরানো সেই কথা?
বলেছিলে তুমি, “বন্ধু তুমি ছাড়া এই জীবনটাই বৃথা”
সেদিনের সেই বিপদের কালে, তুমি এসে ধরেছিলে হাত,
আজও আমি ভুলতে পারিনি সেই ভয়াল কাল রাত!
তোমার পানে তাকিয়ে ভুলেছিলাম আমার যত ভয়,
আমার স্মৃতির কোঠা থেকে এতটুকু হয়নি ক্ষয়!
জানি না কি অপরাধে তুমি ফিরায়ে নিয়েছো মুখ,
একবারও কি ভাব্লে না, আমি কতখানি পেলাম দুখ?
কি করে ভুলে গেলে আমাদের সেই পরিকল্পনা?

বন্ধু তোমার সাথেই তো এঁকেছিলাম এক স্বপ্নের আল্পনা।

জানতে কি ইচ্ছে হয় না তোমার, কেমন আছি আমি?
কখনোও কি ভাবলে না যে বন্ধুত্ব কতখানি দামী?
আজকে কোথায় তুমি? রয়েছ তুমি দূরে বহুদূর-
কিভাবে তাহলে বাজিছে আজ, পুরানো সেই সুর?
বন্ধুত্ব সদা অম্লান থাকে, কখনও কি পুরানো হয়?
পোষাক পাল্টে কি কখনও মানুষটাও পাল্টে যায়?
একবার দেখ পিছন ফিরে, এরপর না হয় যেও তুমি,
আমার মনের কোথায় তোমায় সযতনে রেখেছি আমি!
তুমি হয়ত মনে করছো আমি করছি যত অভিযোগ,
নতুন পুরানো সব কথা তুলে করছি যোগ আর বিয়োগ।
না বন্ধু না! এটা নয় আমার কোন আক্ষেপ অভিমান,
যদি তুমি চাও তবে আমি দিতে পারি তার প্রমাণ!
বন্ধুত্বের মধ্যে পাঁচিল তুলে করা যায় না ব্যবধান-
বন্ধুকে কখনও যায় না ভোলা হোক না তা তিরধান!
কিছু ভালো লাগা, মন্দ লাগা আর প্রতিজ্ঞা নিয়েই বন্ধুত্ব,
আত্মত্যাগের মহিমায় প্রস্ফুটিত হয়ে ওঠে তার মহত্ব।
অনন্তকাল ধরেও যদি আমায় অপেক্ষায় রাখ তুমি,
এক মুহুর্তের জন্যও তোমায় ভুলতে পারবোনা আমি।
জীবনের শেষ প্রান্তে গিয়ে যখন থমকে যাবে সময়,
তখনও ভুলতে পারবোনা আমি বন্ধু শুধু তোমায়!


ভুল বুঝ না আমায়…….| ভালোবাসার কবিতা

হাসো! হাসো না কেন? আমিই তো হাসির পাত্র!
যত খুশি হেসে ছুড়ে ফেলে দিও যত্র-তত্র!
যেথায় খুশি ফেলে দিও, কি বা যায় আসে তাতে?
আর আমি বিরক্ত করবনা দিনে কিংবা রাতে।
মানুষ হিসাবে যেটুকু ছিল প্রাপ্প মুল্যায়ন-
অনেক পেয়েছি, তাতেই আমার ভরে গেছে দুনয়ন!
কি নির্বধ আমি! অধিকারের সীমা করে অতিক্রম-
কি পেলাম আমি? পরিশেষে হল আমার মতিভ্রম!
ভুলেই গেছিলাম, চাওয়া-পাওয়া কিছু থাকতে নেই আমার,
তাই তো মাত্রা ছাড়িয়ে চলে গিয়েছি বারংবার!
“কি বলছো! এতে আমার হয়ে কিছু বদনাম?
হাসালে! আমার ছিল এক্‌টা কাগজের থেকেও কমদাম!”
ভুল! ভুল! কিছুই যে আমি বুঝতে পারিনি তখন,
বড় দেরি হয়ে গেল, ভুল্‌টা বুঝতে পারলাম যখন!
না না! ভয় নেই! আজ এর কাউকে দোষ দেব না আমি,
কতখানি কষ্ট পেয়েছি তা হানি আমি এর অন্তর্যামি!
কি হল? হাসছো না? আমি তো রয়েছি বহুদূরে,
ভয় নেই! তোমাদের জ্বালাতে আমি আসবনা এর ফিরে!
এক্‌টু তো হাসো! যাবার আগে দেখি তোমের হাসি মুখ,
আমার কপালে হয়ত তা জমা রবে হয়ে কিছুটা শুখ!
খুব ভাল লাগ্‌লো যখন জান্‌লাম তুমিও নও ব্যতিক্রম,
আগেই যদি বুঝতাম তবে হয়ত হত না এই বৃথাশ্রম!
দাড়াও, এক্‌টু হেসে নেই! এটুকু সময় তো অন্তত দেবে?
আমি কষ্ট পাই না পাই, তুমি তো নিশ্চই আনন্দ পাবে!
আজ বুঝলাম আমি আমার সীমা করেছিলাম লঙ্ঘন,
তাই তো চলে যাচ্ছি ছিন্ন করে সকল বাঁধন!
ভেবনা! আজ এর আমার মনে জমা নেই কোন ক্ষোভ,
কন পরিতাপ নেই, দুঃখ নেই, এর নেই কোন লোভ!
অনেক চেষ্টা করেও যখন বঝাতে পারলাম না তোমায়,
এক্‌টু এক্‌টু করে তখন পার হয়ে গিয়েছে সময়!
পোড়া কপাল! হতভাগা আমি! বুঝতে পারিনি কিছুই,
অহেতুক আস্ফালন করে করে কষ্ট দিয়েছি শুধুই!
তাও ভাল, দেরি হলেও ভেঙ্গে গেছে আমার ভুল,
কি আসে যায়, কন্‌টা হল অনুকূল অথবা প্রতিকূল?
আজ কেন পরছে মনে তোমার কথা ক্ষনে ক্ষনে?
এতটুকু জায়গা যখন করতে পারলাম না তোমার মনে!
দেখ তো কান্ড! শুধু শুধু সময় করছি নষ্ট-
ব্যবধানের দেয়াল গড়ে উঠেছে দেখতে পেলাম স্পষ্ট!
একদিন আমি ঘুমিয়ে যাব উঠব না আর জেগে,
ভালই হবে, তখন তুমি মুখ কালো করবেনা রেগে!
অনেক বেশি চেয়েছিলাম সীমা গিয়েছিলাম ছাড়িয়ে,
আজ তাই চলে যাচ্ছি তোমার জীবন থেকে হারিয়ে!
বিদায় কালে এক্‌টা কথা বলে দিতে চাই তোমায়,
শেষ অনুরোধ টা রেখ, ভুল বুঝ না আমায়!


অতুলনীয় তুমি | ভালোবাসার কবিতা

তোমার চেয়ে কোন কিছুই বেশী দামী নয় ভাই-
তোমার সাথে কেউ তুলনীয় নয় যে তাই!
তুমি একই রকম আছো, আমাদের হৃদয়ে সর্বদা.
কোন ভাষা দিয়েই বর্ণিতে পারিনা তোমার কথা।
যখন তুমি জড়িয়ে ধর আমায় তোমার আলিঙ্গনে,
সেইসব কথা মিশে আছে মনের স্মৃতির প্রাঙ্গনে।
আমাদের সাথে তুমি নাই ভাবতেই পারি না এ কথা,
তোমার ভাস্বর স্মৃতি নিয়ে বুকে জমে আছে কত ব্যথা।
আমার জীবনে তুমি হয়ে আছ অমূল্য যে সম্পদ-
তোমার মুখের দিকে তাকায়ে লড়তে পারি সব বিপদ।
অতুলনীয় তুমি, সকলের চাইতে অসাধারণ সুনিশ্চয়,
হতেই হবে! আমার ভাই যে! তাইতো সকলে কয়।


এটাই কি আমার বড় ভুল, তোমাকে ভালবাসা ? |  ভালোবাসার কবিতা

স্ম্রৃতির একটা পাতা উল্টিয়ে দেখলাম,
গৌরবময় স্বর্ণালী দিন বিগত, বুঝলাম!
তুমিই ছিলে একমাত্র আমার মানষপটে,
যাকে নানাভাবেই সাজিয়েছিলাম অকপটে!
তোমাকে তো ভালবেসেছিলাম আমি সীমাহীন,
যে ভালবাসার থাকার কথা ছিল অমলীন!
আমার দিনের সূত্রপাত হত তোমার নাম দিয়ে,
এইত আমাদের ভালবাসা, কথা হত যা নিয়ে!
ভালবাসার মাঝে হারিয়েছিলাম এমন করে,
নিজেকে ধ্বংস করেছিলাম নিজ হাতে ধরে!
তোমাকে পাবার জন্য নিজেকে করেছিলাম বিচ্ছিন্ন,
সামান্য আবেগেও নিজেকে করেছিলাম পূর্ণ আচ্ছন্ন!
আমাকে দেখতো সবে মবে সন্দেহের প্রলেপ নিয়ে,
আমি যে সেটা সহ্য করতে পারতাম না কোনভাবে!
অন্ধ ভালবাসা আমাকে পরিবার থেকে করেছিল দূর,
ভেবেছিলাম শুধু তোমাকে নিয়েই বাঁধব নতুন সুর!
আমি কি ভাবতে পেরেছিলাম এই আমূল পরিবর্তন?
আমার ভালবাসায় করতে হবে আমায় পৃষ্ঠ প্রদর্শন?
আমি সেদিন বুঝি নাই প্রেম তোমার কাছে খেলা-
আর এটাই যে আমার বড় ভুল, তোমাকে ভালবাসা।


কুমার জীবন | ভালোবাসার কবিতা

একজন পুরুষের জীবনে রয়ে গেছে কিছু ভাগ,
যার মধ্যে কোনটার জন্য মনে থাকে অনুরাগ!
যখন সেটা পার হয়ে যায়, মনে থাকে কষ্ট;
কভু ফেরানো যাবে না সেটা, তা তো সুস্পষ্ট!
মাত্র একবারই জীবনে আসে সেই সুবর্ণ সময়,
কুমার জীবনই সেটা, যদি কেউ তার নাগাল পায়!
এটা সেই জীবন যেথা মানুষ পায় কিছু উত্তালতা,
এটাই সেই সময় যখন সে পায় ‘না’ বলার স্বাধীনতা।
কুমার জীবন উপভোগ্য কিন্তু যে ভোগ করতে পারে,
বিয়ের পরে যা হারিয়ে যেতে পারে কিন্তু চিরতরে!
জীবনের সুবর্ণ সময়গুলো তো আসে না বারবার,
তাই চেষ্টা কর এর পরিপূর্ণ সদ্ব্যবহার করার!
বৈবাহিক জীবনে অনেক সময় এসে যায় জটিলতা,
নিজের দিকে নজর দেবার তখন আর সময় কোথা?
অনেক ছেলেই আগে ভাগে বুঝতে পারে না এটা,
বুঝে তখনই যখন জটিল আকার ধারণ করে সেটা!
বিয়ের পরে একটা ছেলের জীবনে আসে পরিবর্তন,
কিন্তু সেটা সে বোঝে না যখন সময়ের হয় সংক্ষেপন!
নিজের আবেগ অনুভুতিগুলোর দিও না অকাল সমাধি,
মুল্যায়ন করতে শেখ কুমার জীবনের সংক্ষিপ্ত কালবিধি।

ভালোবাসার কবিতা


Leave a Comment